একজন IPS অফিসারঃ যার সৌন্দর্য বলিউড সুন্দরীদেরও হার মানাবে

মহিলা আইপিএস অফিসার ডাঃ নবজোট সিম্মি

মহিলা আইপিএস অফিসার ডাঃ নবজোট সিম্মি

সাধারণত আমরা সিনেমার নায়িকাদের চরিত্রের খাতিরে পুলিশের পোশাক পরা দেখতে পাই। কিন্তু ভারতের এই নারীর গল্প পুরোপুরি উল্টো ।আর এই গল্পকে কেন্দ্র করে বর্তমানে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে লেগেছে হৈ-হুল্লোড়।

ভারতে এমন অনেক আইএএস-আইপিএস কর্মকর্তা রয়েছেন যারা তাদের কাজের পাশাপাশি তাদের অনন্য সৌন্দর্যের কারণে শিরোনামে উঠে আসেন বেশ কিছু সময়। কঠোর পরিশ্রমের মধ্য দিয়ে জীবন নির্বাহ করলেও তাদের সৌন্দর্য যে একেবারেই খাঁটি, এমনই একজন মহিলা আইপিএস অফিসারের কথা বলা হচ্ছে এখানে। মেকাপের আড়ালে ঢাকতে হয়না তাদের আসল চেহারা। নিজের রুপেই মুগ্ধ করেন সকলকে। তাদের সৌন্দর্য যে কোন সময়ে বলিউড হোকবা টলিউড অভিনেত্রীদের হার মানাতে সক্ষম।

মহিলা আইপিএস অফিসার ডাঃ নবজোট সিম্মি। সিভিল সার্ভিস পরীক্ষা দিয়ে আইপিএস অফিসার হয়েছিলেন। কঠোর পরিশ্রম এবং একাগ্রতার মাধ্যমে অত্যন্ত ভাল ফলাফল নিয়ে তিনি কর্মক্ষেত্রে যোগদান করেন। তার এই সাফল্যে খুশি তার পরিবারের লোকজন।শুধু কর্ম ক্ষেত্রে নয়, সোশ্যাল মিডিয়া জুড়ে এই আইপিএস অফিসার সকলের অত্যন্ত প্রিয় মুখ।সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রকাশিত তার সমস্ত ছবি গুলিতে ভালো ভালো কমেন্ট করতে ক্লান্ত হয়ে পড়ে না সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহারকারীরা। এমন একজন মহিলা সুন্দরী আইপিএস অফিসারের মুখের সৌন্দর্যে মোহিত অনেকেই।

নবজোট সিম্মি বিহার ক্যাডারের ২০১৭ ব্যাচের আইপিএস অফিসার এবং এটি মূলত পাঞ্জাবের। ২০১৫ তে ইউপিএসসি পরীক্ষা দিলেও, সফলতা পাননি সিম্মি। এরপর আবার তাকে পরীক্ষা দিতে হয় ২০১৬ সালে। অবশেষে সফলতা প্রার্থী হয় তার। বর্তমানে তাকে পাটনায় পোস্ট করা হয়েছে। সিম্মি গাইস ওয়েদার গুনগ্রাহী মন্ত্রমুগ্ধ ভক্তদের জন্য নিজের সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম প্রায় দিনই তার বিভিন্ন পোশাকের ছবি শেয়ার করেন।

মহিলা আইপিএস অফিসার নবজোট সিম্মির এই বছর প্রেম দিবস উপলক্ষে কলকাতার কর্মরত প্রেমিক আইএএস অফিসার তুষার সিঙ্গলার সাথে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হয়েছিলেন। তারা দু’জনে সেদিনের সেই ভালবাসা দিবসকে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হওয়ার মতন একটি কাজের মাধ্যমে স্মরণীয় করে রেখেছেন। আইএএস তুষার সিঙ্গলা বেঙ্গল ক্যাডারের ২০১৫ ব্যাচের কর্মকর্তা।

উভয় আধিকারিক পাঞ্জাবের। তাদের উভয়ের বিবাহের বন্ধনের পরে, তারা তাদের নিকটতম আত্মীয়-পরিজনদের উপস্থিতিতে বিয়ে করেছিলেন। তাদের বিবাহ উপলক্ষে তুষারকে আনুষ্ঠানিক পোশাকে বেশ সুদর্শন দেখাচ্ছিল।নবজোট সিম্মি লাল শাড়িতেও দেখা গেছে। লাল শাড়িতে তাকেও যেন অপূর্ব সুন্দর দেখাচ্ছিল। বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হওয়ার পর দম্পতিরা উপাসনার জন্য মন্দিরেও গিয়েছিলেন। তাদের সফল প্রেমের শুভ পরিণতির কারণে ঈশ্বরের কাছে যুগলে প্রার্থনা করেছিলেন। কাজের চাপে আর নিজের জেলায় ফেরা হয়নি।

তুষার সিঙ্গলা পাঞ্জাবের বার্নালার এবং নবজোট সিম্মি পাঞ্জাবের গুরুদাসপুরের বাসিন্দা।যখন তারা দক্ষিণ ভারতে বেড়াতে গিয়েছিলেন, এই সময় দু’জনের দেখা হয়েছিল। দুজনের মধ্যে চলতে থাকা কথোপকথন অবশেষে বন্ধুত্বে গিয়ে পৌঁছায়। সেই বন্ধুত্ব এরপরে প্রেমে পরিণত হয় যার কারণে দুজনেই বিয়ে করার সিদ্ধান্ত নেন। বর্তমানে তারা চুটিয়ে সংসার করছেন।

পূর্ববর্তী পড়ুন

করোনামুক্ত মাশরাফি

পরবর্তী পড়ুন

যেভাবে গ্রেফতার হলেন সাহেদঃ মোটা হওয়ায় দৌড়াতে পারেননি

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

twelve − six =

সর্বাধিক পঠিত